السبت، 11 فبراير، 2017

surah hud

25) And We had certainly sent Noah to his people, [saying], "Indeed, I am to you a clear warner
(26) That you not worship except Allah. Indeed, I fear for you the punishment of a painful day."
(27) So the eminent among those who disbelieved from his people said, "We do not see you but as a man like ourselves, and we do not see you followed except by those who are the lowest of us [and] at first suggestion. And we do not see in you over us any merit; rather, we think you are liars."
(28) He said, "O my people have you considered: if I should be upon clear evidence from my Lord while He has given me mercy from Himself but it has been made unapparent to you, (29) And O my people, I ask not of you for it any wealth. My reward is not but from Allah. And I am not one to drive away those who have believed. Indeed, they will meet their Lord, but I see that you are a people behaving ignorantly.
(30) And O my people, who would protect me from Allah if I drove them away? Then will you not be reminded?
(31) And I do not tell you that I have the depositories [containing the provision] of Allah or that I know the unseen, nor do I tell you that I am an angel, nor do I say of those upon whom your eyes look down that Allah will never grant them any good. Allah is most knowing of what is within their souls. Indeed, I would then be among the wrongdoers."
(32) They said, "O Noah, you have disputed us and been frequent in dispute of us. So bring us what you threaten us, if you should be of the truthful."
(33) He said, "Allah will only bring it to you if He wills, and you will not cause [Him] failure.
(34) And my advice will not benefit you - although I wished to advise you - If Allah should intend to put you in error. He is your Lord, and to Him you will be returned."
(35) Or do they say [about Prophet Muhammad], "He invented it"? Say, "If I have invented it, then upon me is [the consequence of] my crime; but I am innocent of what [crimes] you commit."
(36) And it was revealed to Noah that, "No one will believe from your people except those who have already believed, so do not be distressed by what they have been doing.
(37) And construct the ship under Our observation and Our inspiration and do not address Me concerning those who have wronged; indeed, they are [to be] drowned."
(38) And he constructed the ship, and whenever an assembly of the eminent of his people passed by him, they ridiculed him. He said, "If you ridicule us, then we will ridicule you just as you ridicule.
(39) And you are going to know who will get a punishment that will disgrace him [on earth] and upon whom will descend an enduring punishment [in the Hereafter]."
(40) [So it was], until when Our command came and the oven overflowed, We said, "Load upon the ship of each [creature] two mates and your family, except those about whom the word has preceded, and [include] whoever has believed." But none had believed with him, except a few.
(41) And [Noah] said, "Embark therein; in the name of Allah is its course and its anchorage. Indeed, my Lord is Forgiving and Merciful."
(42) And it sailed with them through waves like mountains, and Noah called to his son who was apart [from them], "O my son, come aboard with us and be not with the disbelievers."
(43) [But] he said, "I will take refuge on a mountain to protect me from the water." [Noah] said, "There is no protector today from the decree of Allah, except for whom He gives mercy." And the waves came between them, and he was among the drowned.
(44) And it was said, "O earth, swallow your water, and O sky, withhold [your rain]." And the water subsided, and the matter was accomplished, and the ship came to rest on the [mountain of] Judiyy. And it was said, "Away with the wrongdoing people."
(45) And Noah called to his Lord and said, "My Lord, indeed my son is of my family; and indeed, Your promise is true; and You are the most just of judges!"
(46) He said, "O Noah, indeed he is not of your family; indeed, he is [one whose] work was other than righteous, so ask Me not for that about which you have no knowledge. Indeed, I advise you, lest you be among the ignorant."
(47) [Noah] said, "My Lord, I seek refuge in You from asking that of which I have no knowledge. And unless You forgive me and have mercy upon me, I will be among the losers."
(48) It was said, "O Noah, disembark in security from Us and blessings upon you and upon nations [descending] from those with you. But other nations [of them] We will grant enjoyment; then there will touch them from Us a painful punishment."
(49) That is from the news of the unseen which We reveal to you, [O Muhammad]. You knew it not, neither you nor your people, before this. So be patient; indeed, the [best] outcome is for the righteous.
(50) And to 'Aad [We sent] their brother Hud. He said, "O my people, worship Allah; you have no deity other than Him. You are not but inventors [of falsehood].
(51) O my people, I do not ask you for it any reward. My reward is only from the one who created me. Then will you not reason?
(52) And O my people, ask forgiveness of your Lord and then repent to Him. He will send [rain from] the sky upon you in showers and increase you in strength [added] to your strength. And do not turn away, [being] criminals."
(53) They said, "O Hud, you have not brought us clear evidence, and we are not ones to leave our gods on your say-so. Nor are we believers in you.

One-Third Of U.S. Residents Say You Must Be Christian To Be ‘Truly American’ | Americans United

آبار النجاة

May Allah reward you welll..

Ahmed Bukhatir - أحمد بوخاطر
جزاك الله خيراً..
May Allah reward you welll..

common mistakes in salah

Remember this!

Islam web - Español

mohmmed

‏‏‎Mohsin Hasan Mumtaz‎‏ مع ‏‎Nicole Gray‎‏ و‏‏9‏ آخرين‏‏.
اللَّهُمَّ صَلِّ عَلَى مُحَمَّدٍ، وَعَلَى آلِ مُحَمَّدٍ، كَمَا صَلَّيْتَ عَلَى إِبْرَاهِيمَ وَعَلَى آلِ إِبْرَاهِيمَ، إِنَّكَ حَمِيدٌ مَجِيدٌ، اللَّهُمَّ بَارِكْ عَلَى مُحَمَّدٍ، وَعَلَى آلِ مُحَمَّدٍ، كَمَا بَارَكْتَ عَلَى إِبْرَاهِيمَ، وَعَلَى آلِ إِبْرَاهِيمَ، إِنَّكَ حَمِيدٌ مَجِيدٌ #

break for their lunch

‏‏‎Mohsin Hasan Mumtaz‎‏ مع ‏‎Samideen Nichols‎‏ و‏‏2‏ آخرين‏‏.
Students of a Madrasa took break for their lunch, Ma sha Allaah #MuslimManners
May Allaah grant them the knowledge of deen and make them leaders of the ummah. Aameen Ya Rab

আল্লাহর নামে শুরু করছি এবং রাসুলের প্রতি দরূদ পেশ করছি।


‏5980‏ مشاهدة
Nouman Ali Khan Collection In Bangla
আল্লাহর নামে শুরু করছি এবং রাসুলের প্রতি দরূদ পেশ করছি।
আসলে দুটি আলাদা সমস্যায় দুই ধরনের উত্তর দেয়া হয়। প্রথম সমস্যা হল আমি দিনে পাঁচ বার সালাত আদায় করতে পারি না।আমি এটা পারছি না। এখন, আমি আপনাকে বিশ্বাস করি না। যেই বলে আমি এটা পারছি না, আমি আপনাকে বিশ্বাস করি না। কেন জানেন? কারন আমি আল্লাহকে বিশ্বাস করি।
আর আমি বলিনি আমি আল্লাহকে স্বীকার করি, আমি বলেছি আমি আল্লাহকে বিশ্বাস করি। এর মধ্যে পার্থক্য আছে, তাই না? আমি আল্লাহকে স্বীকার করি মানে আমি আল্লাহের অস্তিত্বে বিশ্বাস করি।কিন্তু যখন আমি বলি, আমি আল্লাহকে বিশ্বাস করি, তার অর্থ আমি তার কথাগুলো বিশ্বাস করি।তিনি বলেন...আল্লাহ্‌ কখনোই কারও উপর সামর্থের অতিরিক্ত বোঝা চাপিয়ে দেন না।এটাই আল্লাহ্‌ বলেছেন । তিনি বলেছেন তিনি কারও উপরে এমন দায়িত্ব চাপিয়ে দেন না যতক্ষন না তারা সেই দায়িত্ব পালনের সক্ষমতা অর্জন করে। আপনি বলছেন, আপনি এমন দায়িত্ব পালনে অক্ষম যা আল্লাহ্‌ আপনাকে দিয়েছেন। তাই নয় কি? আপনি বলছেন, আমি পাঁচ ওয়াক্ত সালাত আদায় করতে পারছি না।
এটা মাত্রাতিরিক্ত! আর আল্লাহ্‌ বলছেন আপনি পারবেন।সুতরাং আমাকে বেছে নিতে হবে, আমি আপনাকে বিশ্বাস করব না আল্লাহকে। এবং সম্ভবত যদি আপনি তা বুঝতে না পারেন তাহলে নিজের সাথে মিথ্যাচার করছেন। সম্ভবত আপনি এমন ভাবছেন আপনার আলসেমীর কারনে, নিজের ইচ্ছার অভাবের কারনে, আপনি দিনে ৫ ওয়াক্ত সালাত আদায় করতে চান না।আপনাকে পারতে হবে... আমি আপনাকে বুঝতে পারছি না, আমি জানি না সমস্যাটা কি? কিংবা সমস্যাটা হল, আপনি অমুসলিমদের সামনে সালাত আদায়ে লজ্জা পাচ্ছেন। মানুষ কাজের ফাঁকে ১৫ মিনিট ধূমপানের বিরতি নিতে পারে, তাই না? তারা বিরতি নিয়ে বাইরে যেতে পারছে, যা খুশি করতে পারছে আর আপনি দিনে ৫ বার সালাত আদায় করতে পারছেন না? সুবহানাল্লাহ!পৃথিবীর এই প্রান্তে, আমি নিউ ইয়র্ক সিটিতে কাজ করি, আমি দেখি মুসলিমরা সব জায়গাতেই সালাত পড়ছে।রাস্তার মাঝে, ফুটপাতের উপরেও সে সালাত পড়ছে কারন তখন সালাতের সময়।
কিংবা আপনি বিশ্ববিদ্যালয়ের লাইব্রেরীর দরজা খুলেও দেখবেন সেখানে ৩জনে মিলে সালাত আদায় করছে।মুসলিমরা সালাত আদায় করে, সময় হলেই তারা সালাত পড়ে নেয়।এটাই প্রথম ব্যাপার, আল্লাহ্‌ বলেছেন আপনি সক্ষম। আর যদি তাই হয়, আল্লাহ্‌ আসলেই আপনাকে এই দায়িত্ব দিয়েছেন, তাহলে আপনি পারবেন।সুতরাং নিজেকে বোঝান, আল্লাহর উপর ভরসা করেন, তিনি আপনার জন্য এটা সহজ করে দিবেন।
দ্বিতীয় প্রশ্ন হল, তিনি কি আসলে কিছু মনে করেন? আমার সালাত আদায় করা না করায় কি তার কিছু যায়-আসে?এখন এই প্রশ্নটা মূলতঃ, তাঁর কি আমার সালাতের কোন প্রয়োজন আছে?আপনি ভুলে যাচ্ছেন যে সালাত আল্লাহর প্রয়োজনে নয়। এটা আপনার জন্য, আল্লাহর প্রয়োজনে নয়।যদি পৃথিবীর সমস্ত মানুষ তাদের জীবনভর সালাত পড়ে, এটা আল্লাহর সম্পদ বিন্দুমাত্র বৃদ্ধি করে দিবে না।
এটা তার রাজ্যও বাড়িয়ে দিবে না কারন সমস্ত রাজত্বই তাঁর।আর কেউ যদি আর কখনো তাঁর নাম নাও নেয়, তাঁর রাজত্ব, রাজ্য বা মর্যাদার কোনরকম খর্বও হবে না।তাঁর আমাদের প্রয়োজন নেই, আমাদেরই তাকে দরকার, আমাদেরই তাকে দরকা।সুতরাং প্রশ্ন হল, আপনার কি মনে হয় আপনার প্রার্থনা করা দরকার? আপনার কি মনে হচ্ছে আপনার জীবনে এটা প্রয়োজনীয়?যদি না হয়, আপনার যদি আল্লাহর সাহায্য প্রার্থনার, আল্লাহর দিকে যাওয়ার এবং তাঁর আদেশ মানার প্রয়োজন না পড়ে, তাহলে আপনার ঈমান মারাত্মক সংকটের মুখে।
তা দূর্বল হয়ে গিয়েছে এবং এই প্রশ্ন এই কারনেই দেখা দিয়েছে যে আপনি দীর্ঘদিন ধরে আল্লাহর নৈকট্য থেকে দূরে সরে আছেন এবং শয়তান আপনার কাছে আসতে পারছে আর বলছে...হ্যাঁ, আমি জানি, সালাত আদায় না করায় আপনার খারাপ লাগে, এই বাজে অনুভূতি দূর করে ফেলুন এবং একে প্রতিস্থাপন করুন এই অনুভূতি দিয়ে যে আপনার কেন সালাত আদায় আবশ্যক। এটা এই রোগের পরবর্তী পর্যায়। প্রথম অংশ হল, অন্তত এটা ধরা পড়ছে, আপনার কমপক্ষে খারাপ লাগছে, এখনো অপরাধবোধ কাজ করছে, এটাই আল্লাহর পক্ষ থেকে একটি পুরস্কার।
আর এই অপরাধবোধও যখন চলে যাবে, আপনি বলবেন আল্লাহর কাছে প্রার্থনার কোন দরকার নেই, সবই ঠিক আছে। যতদিন আমি ভালো কাজ করবো, এটাই আমার বক্তব্যের শেষ অংশ, এই “যতদিন আমি ভালো কাজ করবো” অংশ।কে ভালো-মন্দ ঠিক করে? এই পৃথিবীতে দুই ধরনের ভালো কাজ আছে। দয়া করে এটা মনে রাখবেন। দুই ধরনের ভালো কাজ আছে। একটি হচ্ছে নীতিশাস্ত্রের দিক থেকে ভালো। আমি আমার প্রতিবেশির কাছে ভালো, আমি আমার কাজে সৎ, আমি মানুষের নিকট ভালো, আমি চুরি করি না, আমি ধোঁকা দেই না।এগুলো হচ্ছে মূলনীতি।
আমি সত্য বলি, আমি সৎ, আমি ট্যাক্স দেই... এগুলো হচ্ছে নীতিগত সত্য। এবং আমি ব্যাবসায় সৎ।এছাড়াও আছে ধর্মীয় ব্যাপার। আমি হজ্বে যাই, আমি যাকাত দেই, আমি পাঁচ ওয়াক্ত সালাত আদায় করি, আমি রমযানে সাওম পালন করি। এগুলো নীতিগত বাস্তবতা নয়, এগুলো হচ্ছে ধর্ম অনুযায়ী ভালো কাজ। ভালো কাজ যা ধর্মীয় এবং ভালো কাজ যা নীতিশাস্ত্রীয়, স্বাভাবিকভাবেই নৈতিক। এটা অসংখ্যবার মুসলিম-অমুসলিম উভয়ের সাথেই ঘটে, বিশেষ করে মুসলিমদের সাথে। আমরা এই দুয়ের মধ্যে পার্থক্য করে ফেলি। তাই, মুসলিম বিশ্বে আপনি দেখবেন যে মানুষ নৈতিক দিক দিয়ে ভালো।তারা পরিবারের প্রতি যত্নশীল, বাচ্চাদের যত্ন নিচ্ছে, গৃহস্থালী কাজে দায়িত্বশীল, প্রতিবেশীর প্রতি সচেতন, কাজের প্রতি সৎ। ভালো মানুষ, কিন্তু ধার্মিক না।আমার ভালো হতে ধর্মের প্রয়োজন নেই, তারা বলবে। আর অন্যদিকে আপনি কিছু মানুষ পাবেন যারা সালাত আদায় করে, হজ্বে যায়, যাকাত দেয়, লম্বা দাড়ি রাখে, ধর্মীয় পোষাক পরিচ্ছদ পরে। এবং তবুও পরিবারের প্রতি ভয়ংকর, ব্যাবসায় প্রতারণা করে, নৈতিক শাস্ত্র অনুযায়ী খুবই খারাপ।
তাহলে আমরা ভালোর দুটি বিভাগ তৈরি করলে কি ঘটবে? নৈতিক দিক দিয়ে ভালো, শাস্ত্র অনুযায়ী ভালো এবং ধর্মীয় দিক থেকে ভালো। আল্লাহ্‌ কুরআনে যা করলেন তা হল এই দুটিকে একত্রে বেঁধে দিলেন। একটি আয়াত দিয়ে যাকে বলে আয়াতুল বির- উত্তমের আয়াত, এতে উত্তমের সংজ্ঞা কিভাবে দিয়েছে? আপনি এই আয়াত পড়লে দেখবেন এতে দুটি জিনিস বলা হয়েছে। এতে নীতিশাস্ত্র, তোমার ওয়াদা রাখ, ধৈর্যশীল হও, উদ্যমী হও এর সাথে ধর্মীয় গুনাবলী সালাত কায়েম করা, যাকাত দেয়ার সমন্বয় ঘটেছে।
তাই এটা এক জায়গায় এই উভয়ের সমন্বয় করেছে। তাই আপনি যদি ভাবেন আপনি ভালোকে সংজ্ঞায়িত করবেন... তাহলে আপনি বোধহয় নৈতিক গুনাবলীর কথা বলছেন। এবং আপনি ধর্মীয় গুনাবলীর কথা ভুলে গেছেন। যে আচার গুলো আল্লাহ্‌ আমাদের শিখিয়েছেন। কিন্তু আল্লাহ্‌ চান আমরা একই সাথে দুটোই অর্জন করি। আর তখনই একজন প্রকৃত অর্থেই ভালো হবেন। তা না হলে আপনি প্রকৃত অর্থে ভালো নয়। আপনি আপনার মতো করে ভালোকে সংজ্ঞায়িত করছেন। আর আল্লাহর সংজ্ঞাকে বাতিল করে দিচ্ছেন! কিন্তু আমরা আল্লাহর দিকে প্রত্যাবর্তন করি কারন আমরা আমাদের মতো করে জিনিসগুলোর সংজ্ঞা দিতে পারি না। এগুলোকে সংজ্ঞায়িত করতে তাঁকে আমাদের প্রয়োজন। ইনশাআল্লাহ তায়ালা (আল্লাহ্‌ যদি ইচ্ছা করেন)।
আয়াতুল বির এর বাংলা অনুবাদঃ
''সৎকর্ম শুধু এই নয় যে, পূর্ব কিংবা পশ্চিমদিকে মুখ করবে, বরং বড় সৎকাজ হল এই যে, ঈমান আনবে আল্লাহর উপর, কিয়ামত দিবসের উপর, ফেরেশতাদের উপর এবং সমস্ত নবী-রসূলগণের উপর, আর সম্পদ ব্যয় করবে তাঁরই মহব্বতে আত্নীয়-স্বজন, এতীম-মিসকীন, মুসাফির-ভিক্ষুক ও মুক্তিকামী ক্রীতদাসদের জন্যে। আর যারা নামায প্রতিষ্ঠা করে, যাকাত দান করে এবং যারা কৃত প্রতিজ্ঞা সম্পাদনকারী এবং অভাবে, রোগে-শোকে ও যুদ্ধের সময় ধৈর্য্য ধারণকারী তারাই হল সত্যাশ্রয়ী, আর তারাই পরহেযগার।''
[সূরা বাকারাঃ ১৭৭]

We all get stressed

‏‏‎Dr. Bilal Philips‎‏ مع ‏‎Amie Abdullah Al Ajmi‎‏ و‏‏44‏ آخرين‏‏.
We all get stressed at times; it’s part of life, part of Allah’s test and in fact, it is said that Allah tests those He loves most.
The Prophet (peace and blessings be upon him) said:
“If Allah wants to do good to somebody, He afflicts him with trials.” [Bukhari] #HiddenBlessings

Makkah: The city that never sleeps.

Darussalam Publishers & Distributors
Makkah: The city that never sleeps.
NOTE: See this image full screen for better view.

7--Surah Al-Araf verse# 199

خُذِ الْعَفْوَ وَأْمُرْ بِالْعُرْفِ وَأَعْرِضْ عَنِ الْجَاهِلِينَ
 Hold to forgiveness; command what is right; But turn away from the ignorant.
7--Surah Al-Araf verse# 199

Longest Necks

‏‏‎ISLAM and Science‎‏ مع ‏‎Kamyar Kheradmand Mojaza‎‏ و‏‏5‏ آخرين‏‏.
Longest Necks
The Messenger of Allah (sal Allahu alaihi wa sallam) said: “The Muadh-dhins will have the longest necks of all the people on the Day of Resurrection.” [Muslim]
Among those whose virtue will be made manifest on the Day of Resurrection will be the Muadh-dhins (those who call the Adhaan). A long neck is a sign of beauty. Thus, the most proportionately long and beautiful necks will be of the Muadh-dhins because of their having conveyed to people with their voices the declaration of Tawheed and the call to prayer.

Pope Benedict XVI to resign citing poor health - BBC News

Surat Adh-Dhāriyāt

دار الاسلام
They used to sleep but little of the night(17)And in the hours before dawn they would ask forgiveness (18)
Surat Adh-Dhāriyāt

REVIVE A SUNNAH ⇨ "PURIFY YOUR HEART FROM MALICE AND ENVY"


Islam Religion
REVIVE A SUNNAH ⇨ "PURIFY YOUR HEART FROM MALICE AND ENVY"
The Man went to Paradise because he purified his heart from Malice and Envy.
Anas ibn Malik (رضى الله عنه) said that when he was sitting with the Messenger of Allah (صلى الله عليه وسلم), he said: “Coming upon you now is a man from the people of Paradise.” So a man came from the Ansar whose beard looked disarrayed by the water from Wudu (ablution), and he was carrying both of his shoes with his left hand.
The next day the Prophet (صلى الله عليه وسلم) repeated the same words, and the Ansar came in the same condition.
The third day the Prophet repeated the same again, and the Ansar man showed up in the same condition.
When the Messenger of Allah (صلى الله عليه وسلم) stood up to leave, Abdullah ibn Umar ibn Al-’As followed the man and asked him, “I have quarreled with my father and I have sworn not to enter my home for three days. May I stay with you?” He said: “Yes.”
Abdullah ibn Umar ibn Al-‘As stayed three nights with him but never saw him praying at night, and whenever he went to bed, he would remember Allah and rest until he woke up for Fajr prayer.
Abdullah said that he never heard anything but good from his mouth. When three nights had passed and he did not see anything special about his actions, Abdullah asked him, “O servant of Allah! I have not quarreled with my father nor have I cut relations with him. I heard the Messenger of Allah (صلى الله عليه وسلم) say three times that a man from the people of Paradise was coming to us, and then you came. So I thought I should stay with you and see what you are doing that I should follow, but I did not see you do anything special. What is the reason that the Messenger of Allah spoke highly of you?”
The man said: “It is as you have seen.” When Abdullah was about to leave, the man said, “It is as you have seen, except that I do not find fraud in my soul towards the Muslims, and I do not envy anyone because of the good that Allah has given them.”..

why the inspired authors gave different last words ?


Answering Christanity
Jesus 7 Last Words .... why the inspired authors gave different last words ?

Why Jesus arrest,talk with Pilate is not same,if writers were Inspired by Holy Spirit ?


Answering Christanity
Why Jesus arrest,talk with Pilate is not same,if writers were Inspired by Holy Spirit ?

Unfortunately

ISLAM and Science
Unfortunately , many muslims youth are imitating those people , they think that modernity is to disrespect your society habits and to act freely 100 % , i live in a muslims country and i daily meet youth wearing clothes this way !!!
We muslims should be respectful in all domains and all places , we should not show private parts from our bodies and we should not imitate non muslims in such things ...
It was narrated that ‘Abd-Allaah ibn ‘Umar said: The Prophet (peace and blessings of Allaah be upon him) said: “Whoever imitates a people is one of them.” Narrated by Abu Dawood, 3512; classed as saheeh by al-Albaani in Irwa’ al-Ghaleel, 2691.
It was narrated from Abu Sa’eed al-Khudri (may Allaah be pleased with him) that the Prophet (peace and blessings of Allaah be upon him) said: “You will certainly follow the ways of those who came before you hand span by hand span, cubit by cubit, to the extent that if they entered the hole of a lizard, you will enter it too.”

(caused by non-Muslims)


♥ I LOVE ISLAM ♥
1. The First World War 17 million dead (caused by non-Muslims)
2. The Second World War 50-55 million dead (caused by non-Muslims)
3. Nagasaki atomic bombs 200,000 dead (caused by non-Muslims)
4. The war in Vietnam over 5 million dead (caused by non-Muslims)
5. The war in Bosnia / Kosovo over 500,000 dead (caused non-Muslims)
6. War in Iraq (so far) 1,200,000 deaths (caused non-Muslims)
7. Afghanistan, Burma etc. (caused by Non-Muslims)
You still think that Islam is the problem?!
And when it is said to them, "Do not cause corruption on the earth," they say, "We are but reformers." [2:11]
[SHARE IF YOU THINK MUSLIMS ARE NOT TERRORISTS]